এফিলিয়েট মার্কেটিং গাইড

আমাজন এফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পূর্ণ গাইডলাইন- স্টেপ ৪ (কন্টেন্ট)

এই স্টেপে আমি একটা সাইটের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারটা নিয়ে কথা বলবো। একটা সাইটের প্রাণ বলা যায় সেটার কন্টেন্টকে। কন্টেন্ট একটা সাইটের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কন্টেন্টই ঠিক করে একটা সাইট ভালো করবে নাকি করবে না। তাই কন্টেন্টের প্রতি আপনাকে সবচেয়ে বেশি নজর দিতে হবে।

আমি সাজেস্ট করবো আপনার বাজেটের সিংহভাগ কন্টেন্টের পেছনে খরচ করতে। কারণ কন্টেন্ট ভালো না হলে আপনি অন্য আর যাই করুন না কেন, যত ভালোই ডিজাইন করুন সাইটে বা যত দামী থিম কিনুন কোনো লাভ হবে না। অন্যদিকে যদি আপনার কন্টেন্ট ভালো হয় তাহলে একটা মোটামোটি ডিজাইনের সাইটও ভালো করবে।

কন্টেন্ট লেখার টাইমে নিচের ব্যাপারগুলোর দিকে খেয়াল রাখবেনঃ

  • আমি সবাইকে সাজেস্ট করি একটা নিশ সাইটের জন্য অন্তত ৩০টা কন্টেন্ট লেখার টার্গেট রাখতে। এই ৩০টা কন্টেন্ট এর ভেতরে ১০-১৫টা KGR কিওয়ার্ডের উপর হলে ভালো হয়। বাকিগুলো কিওয়ার্ডগুলো KGR হতে হবে এমন কথা নেই, আপনি কিছুটা বড় বড় কিওয়ার্ড টার্গেট করতে পারেন।
  • খেয়াল রাখবেন আপনার কন্টেন্ট যেন ভিজিটরের প্রশ্নের উত্তরটা খুব ভালোভাবে দেয়। একটা কন্টেন্টের উদ্দেশ্য হলো ভিজিটর যেই সার্চ কোয়েরি লিখে ওই কন্টেন্টে এসেছে কন্টেন্টটা যেন সেই সার্চ কোয়েরির উত্তর ভিজিটরকে যথাযথ ভাবে দেয়। যখনই আপনি আপনার কন্টেন্টের মাধ্যমে আপনার সাইটের ভিজিটরদের প্রশ্নের উত্তর দিবেন, তখনই ভিজিটররা আপনার কন্টেন্টকে বেশি পছন্দ করবে।
  • অবশ্যই খেয়াল রাখা লাগবে কন্টেন্টটা যেন হেল্পফুল হয়। ‘এই আর্টিকেল লিখে কত টাকা কামাবো’ এই ধরনের চিন্তা না করে ভাবুন কিভাবে আমি এই আর্টিকেলটা লিখে আমার ভিজিটরদের সাহায্য করতে পারবো, কি করলে আমার ভিজিটররা আরো অনেক বেশি উপকার পাবে। যখনই আপনি আপনার ভিজিটরদের সাহায্য করবেন, তখন অটোমেটিক বাই প্রোডাক্ট হিসেবে আপনি টাকা আর্ন করতে থাকবেন।
  • অনেক বড়, লেন্থি কন্টেন্ট লেখার চেষ্টা করুন। আর্টিকেলের লেন্থ যত বেশি হবে সেটার গুগুলে র‍্যাঙ্ক করার চান্স তত বাড়বে। Backlinko এর Founder Brian Dean একটা স্টাডি করে দেখেন যে গুগুলের ফার্স্ট পেজে যত আর্টিকেল আছে, গড়ে সেগুলোর ওয়ার্ড লেন্থ হলো ১৮৯০ ওয়ার্ডের মতো। এখানে ক্লিক করে স্টাডিটা সম্পর্কে জানতে পারবেন। তাই আমি বলবো আর্টিকেল যতটুকু সম্ভব বড় করা যায় করতে। এটলিস্ট আপনার কম্পিটিটর থেকে বড় আর্টিকেল লেখার চেষ্টা করুন। ধরুন কোনো একটা কিওয়ার্ডের জন্য আপনার কম্পিটিটরের আর্টিকেল আছে ১০০০ ওয়ার্ডের। তাহলে আপনার টার্গেট থাকা উচিত সেই কিওয়ার্ডের উপর কমপক্ষে ১৫০০ ওয়ার্ড লেখার চেষ্টা করা। মোটকথা আর্টিকেলটা এমন হতে হবে যাতে সেটা পড়ে ভিজিটরের ওই কিওয়ার্ড সম্পর্কে জানার আর কিছু বাকি না থাকে।
  • শুধু বড় করার খাতিরে একটা আর্টিকেল চুইংগামের মতো টেনে লম্বা করা যাবেনা। যে জিনিসটা ৫০০ ওয়ার্ডে বলা যায় সেটা টেনে ১০০০ ওয়ার্ডে বলার কোনো দরকার নেই, এতে ভিজিটর আরো বিরক্ত হবে। আপনাকে রিয়েল ভ্যাল্যু দিতে হবে, রিয়েল ইনফর্মেশন দিতে হবে। ধরুন আপনার কিওয়ার্ড হলো bedroom decoration. এখন আপনি দেখলেন যে আপনার কম্পিটিটর এই কিওয়ার্ডকে টার্গেট করে এমন আর্টিকেল লিখেছে ’10 Simple Ways For Bedroom Decoration’ মানে আপনার কম্পিটিটর ১০টা পদ্ধতি নিয়ে কথা বলেছে। তাহলে আপনার রিসার্চ করে ১২ টা, ১৫টা বা ২০টা পদ্ধতি বের করতে হবে যাতে কম্পিটিটর থেকে আপনার আর্টিকেলটার কোয়ালিটি আরো অনেক ভালো হয়। অবশ্যই আপনার কম্পিটিটর থেকে আরো ভালো কিছু আপনাকে ভিজিটরদের দিতে হবে। তা নাহলে ভিজিটররা কেন আপনার সাইটে আসবে যদি আপনার আর্টিকেলের কোয়ালিটি আর আপনার কম্পিটিটরের আর্টিকেলের কোয়ালিটি একই হয়?

কিভাবে আপনার সাইটের জন্য আর্টিকেল পাবেন?

কয়েকটা পদ্ধতি আছে আপনার সাইটের জন্য আর্টিকেল জোগাড় করার।

  1. আপনি যদি ইংরেজিতে ভালো হোন তাহলে নিজেই আর্টিকেল লেখা শুরু করে দিতে পারেন। এতে আপনার কন্টেন্টের পেছনে কোনো ইনভেস্ট করতে হবেনা। অনেক টাকা বেচে যাবে। তবে এখানে কিছু ব্যাপার আছে। ইংরেজিতে ভালো হলেই যে আপনার আর্টিকেলগুলো ভালো হবে তা না। আমরা সবাই বাংলায় লিখতে পারি, তবে আমরা সবাই কিন্তু লেখক না। আপনাকে জানত হবে কি করে ব্লগ পোস্ট লিখতে হয়, এই ব্যাপারে অনেক স্টাডি করতে হবে। আপনার নিশের অন্যান্য সাইটগুলো দেখে স্টাডি করুন, দেখুন তারা কিভাবে লিখেছে। এছাড়াও কিভাবে ব্লগপোস্ট লিখতে হয় এই নিয়ে অনলাইনে শত শত রিসোর্স আছে, সেগুলা পড়ে দেখতে পারেন। তাছাড়াও এই সাইটের ব্লগে আমি আর্টিকেল কিভাবে লিখতে হয় তা নিয়ে অনেকগুলো পোস্ট লিখেছি, সেগুলা পড়ে দেখতে পারেন। তবে যদি আপনি ইংরেজিতে দুর্বল হোন, তাহলে আমি বলবো নিজে আর্টিকেল লেখার চেষ্টা না করাই বেটার, কারণ এতে হিতে বিপরীত হতে পারে। কন্টেন্টের কোয়ালিটি যাতে ভালো হয় সেদিকে সবচেয়ে বেশি নজর দিতে হবে।
  2. ফেসবুকে ফ্রিল্যান্সিং রিলেটেড অনেক গ্রুপ আছে। আপনি চাইলে সেসব গ্রুপে রাইটার চাই বলে পোস্ট দিতে পারেন। অনেক রেসপন্স পাবেন। এই পদ্ধতিতে কন্টেন্ট এর পেছনে বেশি খরচও পড়বেনা। তবে আমি এটা পছন্দ করিনা। কারণ ৯৫% ক্ষেত্রেই রাইটাররা নিজেরাই ইংরেজিতে থাকেন দুর্বল, ভালো কন্টেন্ট দিতে পারেন না। অন্যদিকে আপনিও যদি ইংরেজিতে দুর্বল হোন, তাহলে বুঝতেও পারবেন না রাইটার ভালো কন্টেন্ট দিচ্ছে নাকি খারাপ কন্টেন্ট দিচ্ছে।
  3. এবার একটু নিজের সার্ভিসের গুণগাণ করি। আমি শুরুতেই বলেছিলাম আমার এজেন্সি আর্টিকেল রাইটিং সার্ভিস দেয়। আমার একদল ট্রেইন্‌ড রাইটার আছেন, যারা বিশেষভাবে এই ধরনের ব্লগপোস্ট লেখায় পারদর্শী। আপনি যখন আমাদের এখানে কোনো একটা আর্টিকেল অর্ডার করবেন, তখন সেটা আমি আমার একজন রাইটার কে দেই। রাইটার সেটা লিখে ডেলিভারি করার পর আমি সেটা আমার প্রুফ্ররিডার করে দেই। প্রুফরিডার আর্টিকেলটা ঘষে মেজে একদম পার্ফেক্ট করে দেয়। তারপর আমি সেটা Premium CopyScape এবং Grammarly দিয়ে চেক করে নিই যাতে কোনো ধরনের কপি করা কন্টেন্ট এবং গ্রামাটিক্যাল ভুল আর্টিকেলে না থাকে। এতোগুলা প্রসেস পার হবার পরেই আমি আর্টিকেলটা ক্লায়েন্টকে ডেলিভারি দেই। আমার এখানে আর্টিকেলের প্রাইস যে একদম কম তা মোটেই না। But You Get What You Pay For. আর্টিকেলের কোয়ালিটি যে ভালো হবে সে ব্যাপারে ইনশাল্লাহ আমি নিশ্চয়তা দিতে পারবো। আরো বিস্তারিত জানতে আমাকে ফেসবুকে মেসেজ করতে পারেন অথবা এই নাম্বারে কল দিতে পারেনঃ ০১৯৬৯-১০৪১৫৭।
  4. আপনার যদি বাজেট বেশি থাকে এবং চান নেটিভ রাইটারদের দিয়ে আর্টিকেল লেখাতে, তাহলে বিদেশি রাইটিং এজেন্সিগুলোর সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। কিছু উল্লেখযোগ্য এজেন্সি হলো Textbroker, iWriter, Passive Journal.

কিভাবে সাইটের জন্য ইমেজ সংগ্রহ করবেন?

সাইটের জন্য সবচেয়ে নিরাপদ উপায়ে ইমেজ সংগ্রহ করতে আমার নিচের ভিডিওটা ফলো করতে পারেনঃ

 

কিছু রিসোর্স

আমি এখানে আমার লেখা আর্টিকেল রাইটিং এর উপর কিছু রিসোর্স শেয়ার করছি, চাইলে সেগুলো পড়ে দেখতে পারেনঃ

কিভাবে আর্টিকেলের গ্রামার চেক করবেন? (৩ টি গ্রামার চেকার টুলস্‌)

কিভাবে দেখবো আমার আর্টিকেল প্ল্যাগারিজম ফ্রি? (৫ টি ফ্রি টুলস্‌)

কিভাবে বুঝবেন একটা আর্টিকেল হাই কোয়ালিটি নাকি লো কোয়ালিটি?

কিভাবে একটি প্রডাক্ট রিভিউ আর্টিকেল লিখতে হয়?

আর্টিকেল লেখার ১৫টি টিপস

কিভাবে এস ই ও ওপ্টিমাইজড কন্টেন্ট লিখবেন? ( ৯টি টিপ্‌স )

বড়ো আর্টিকেল নাকি ছোট আর্টিকেল? কোনটা বেশি ভালো?

কিভাবে একটি ব্লক পোস্ট লিখতে হয় (পার্ট ১): আকর্ষনীয় হেডলাইন লেখা

কিভাবে একটি ব্লক পোস্ট লিখতে হয় (পার্ট ২): Bucket Brigades মেথড

কিভাবে একটি ব্লক পোস্ট লিখতে হয় (পার্ট ৩): LSI কিওয়ার্ডের খুটিনাটি

কিভাবে একটি ব্লক পোস্ট লিখতে হয় (পার্ট ৪): APP Formula

ভাইরাল ব্লগ পোস্ট লেখার কিছু টিপস 

অন পেইজ এস ই ও

একটা আর্টিকেল লেখার পর সেটার অন পেইজ এস ই ও ভালো করে করতে হবে। অন পেইজ এস ই ও নিয়ে আমার অনেকগুলো লেখা অলরেডি এই সাইটে আছে। তাই আমি নতুন করে কিছু লিখলাম না। অন পেইজ এস ই ও নিয়ে আমার সবগুলো লেখা নিচে শেয়ার করছি। আপনি অবশ্যই লেখাগুলো পড়ে নিবেনঃ

অন পেইজ এস ই ও টিউটোরিয়াল (পার্ট ১)- সাইট স্পীড

অন পেইজ এস ই ও টিউটোরিয়াল (পার্ট ২)- টাইটেল ট্যাগ

অন পেইজ এস ই ও টিউটোরিয়াল (পার্ট ৩)- URL স্ট্রাকচার

অন পেইজ এস ই ও টিউটোরিয়াল (পার্ট ৪)- মেটা ডেসক্রিপশন

অন পেইজ এস ই ও টিউটোরিয়াল (পার্ট ৫)- ইমেজ অপটিমাইজেশন

অন পেইজ এস ই ও টিউটোরিয়াল (পার্ট ৬)- Internal Link

কেন আমি Yoast এর গ্রীন ইন্ডিকেটর নিয়ে মাথা ঘামাই না?

সম্পূর্ণ এস ই ও গাইড ২০১৯ঃ যা যা আপনার জানা উচিত

SEO এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ রুল

SEO সম্পর্কে ৫টি জিনিস যা গুগুল আপনাকে জানাতে চায়

আশা করি উপরে যেকয়টা রিসোর্স শেয়ার করেছি সবগুলো আপনি পড়েছেন। না পড়ে থাকলে প্লিজ পড়ে ফেলুন। এগুলো না পড়ে আগালে অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটা অংশ শেখা আপনার বাকি থেকে যাবে।

 

পরবর্তী স্টেপ ৫ এ যান >>

<< আগের স্টেপ ৩ এ যান