how to write product review article

কিভাবে একটি প্রডাক্ট রিভিউ আর্টিকেল লিখতে হয়?

প্রডাক্ট রিভিউ আর্টিকেল একটা আমাজন সাইটের অন্যতম প্রধান অংশ। মূলত এই রিভিউ আর্টিকেলগুলার মাধ্যমেই একজন আর্ন করে থাকে। তাই আপনার প্রডাক্ট রিভিউ আর্টিকেল ভালো না হলে সেটা থেকে আর্ন করার পসিবিলিটি অনেক কমে যাবে।

এই আর্টিকেলে আমি ভালো প্রডাক্ট রিভিউ আর্টিকেল লেখার কয়েকটি টিপ্‌স বলবো। আমি এই গাইডলাইনগুলো নিজে ফলো করে ভালো রেজাল্ট পেয়েছি। শুরু করার আগে বলে নেই, প্রডাক্ট রিভিউ আর্টিকেল লেখার অনেক ওয়ে আছে, আমি এখানে যেভাবে বলবো সেটাই একমাত্র ওয়ে না। তাই, আপনি চাইলে আরো রিসার্চ করে দেখতে পারেন কোন পদ্ধটি আপনার ভালো লাগে এবং আপনি ফলো করতে চান।

চলুন শুরু করা যাক।

প্রডাক্ট রিভিউ আর্টিকেল আসলে কি?

প্রডাক্ট রিভিউ আর্টিকেল বলতে আসলে বোঝায়, একটা আর্টিকেল যেখানে আপনি একটা প্রডাক্ট সম্পর্কে আপনার ভালো লাগা বা খারাপ লাগা গুলা লিখবেন। মূলত, বলবেন প্রডাক্টটা সম্পর্কে আপনার ধারণা কি, এটা থেকে আপনি কিরকম ফলফাল পেয়েছেন, কেন এটা ব্যবহার করা লাভজনক ইত্যাদি। সবশষে ওই প্রডাক্টটা কেনার লিঙ্ক (স্পেশাল এফিলিয়েট লিংক) আর্টিকেলে শেয়ার করবেন। ওই লিঙ্ক থেকে কেউ প্রডাক্টটা কিনলে আপনি কমিশন পাবেন।

কিভাবে প্রডাক্ট রিভিউ আর্টিকেল লিখবেন?

প্রডাক্ট রিভিউ আর্টকেল লেখার সবচেয়ে ভালো উপায় হলো যদি প্রডাক্টটা আসলেই আপনি কিনে থাকেন এবং আপনার সাথে থাকে। এতে আপনার রিভিউটা অনেক বিশ্বাসযোগ্য হবে এবং আপনার কনভার্শন রেট বেড়ে যাবে। এছাড়াও, আপনি একচুয়েলি প্রডাক্টটা ব্যবহার করলে রিভিউ লেখা আপনার জন্য অনেক ইজি হয়ে যাবে। প্রডাক্টটা নিয়ে আপনার মতামত, অভিজ্ঞতা সুন্দর করে লেখলেই ভালো মানের একটা রিভিউ আর্টিকেল পেয়ে যাবেন।

কিন্তু, প্রডাক্টটা একচুয়েলি কিনে রিভিউ লেখার উপায় আমাদের অনেকেরই নেই। আমরা যারা আমাজিন এফিলিয়েট মার্কেটিং করে থাকি, তারা জানি যে আমাজন এর বেশিরভাগ প্রডাক্ট বাংলাদেশে পাঠানো যায়না। তাই, প্রডাক্ট কিনে দেখার সুযোগ খুব একটা থাকে না।

তো, প্রডাক্টটা যদি আপনার না হাতে না থাকে, তাহলে কিভাবে লিখবেন? এই সম্পর্কেই আমি এখন বলবো।

এখানে কিছু গাইডলাইন দেওয়া আছে যেগুলা আমি ফলো করি একটা রিভিউ আর্টিকেল লেখার সময়।

  • রিসার্চঃ লেখা শুরু করার আগে, প্রথমেই আপনাকে যেটা করতে হবে সেটা হলো রিসার্চ। প্রপার রিচার্চ একটা ভালো আর্টিকেলের প্রধান শর্ত। রিসার্চ করার উদ্দেশ্য হচ্ছে, প্রডাক্টটা সম্পর্কে ইনফরমেশন নেওয়া যেগুলা ইউজ করে আপনি আর্টিকেল লিখবেন। ফার্স্টে আপনাকে আমাজন থেকে যতদূর সম্ভব ইনফরমেশন নিতে হবে। দেখুন আমাজনে প্রডাক্টটা সম্পর্কে কি কি বলা আছে, এর ফিচার্স কি, জেনারেল ডেস্ক্রিপশনে কি লেখা আছে, কাস্টমার রিভিউ কেমন, অন্যান্য কাস্টমাররা প্রডাক্টটা নিয়ে কি কি বলেছে ইত্যাদি। এসব থেকে আপনাকে প্রডাক্টটা সম্পর্কে ইনফর্মেশন নিয়ে আর্টিকেলটা লিখতে হবে। এছাড়াও, গুগুলে আপনার প্রডাক্টটা লিখে সার্চ দিন। দেখুন প্রথম ১০টা সার্চ রেজাল্টে কি কি আছে। প্রত্যেকটা সাইটে গিয়ে দেখুন প্রডাক্টটা সম্পর্কে কি লেখা আছে। এখান থেকে আইডিয়া পাবেন কিভাবে আর্টিকেলটা লেখা লাগবে, কি কি ইনফর্মেশন থাকা লাগবে আর্টিকেলে।
  • আউটলাইনঃ রিসার্চ শেষে যখন আপনার কাছে পর্যাপ্ত ইনফর্মেশন থাকবে প্রডাক্টটা নিয়ে লেখার জন্য, তখন লেখা শুরু করুন। আমার প্রডাক্ট রিভিউ আর্টিকেলে আমি এমন আউটলাইন ফলো করি। প্রথমেই, প্রডাক্টটা যদি কোনো ব্র্যান্ড এর হয়, তখনা আমি ওই ব্র্যান্ডটা সম্পর্কে কিছু কথাবার্তা লিখি। এখানে বলার চেষ্টা করি ব্র্যান্ডটা কেনো ভালো, সবাই কেনো এটার প্রডাক্ট ব্যবহার করে এসব। এছাড়াও ব্র্যান্ডটা নিয়ে আরো জেনারেল কথাবার্তা চাইলে লিখতে পারেন।

এরপর, আমি প্রডাক্টটা নিয়ে লেখা শুরু করি। ফার্স্টেই প্রডাক্টটা সম্পর্কে কিছু জেনারেল কথাবার্তা লিখি। এই প্যারা থেকে আপনার ভিজিটররা একটা আইডিয়া পাবে প্রডাক্টটা সম্পর্কে। এরপর আমি প্রডাক্টটার ফিচার্স, স্পেসিফিকাশন্স, সুবিধা, অসুবিধা, কেন আমি প্রডাক্টটা পছন্দ করি এসব লিখি। প্রত্যেকটা ক্ষত্রেই আমি আলাদা আলাদা সাব হেডিং ইউজ করি, বুলেট পয়েন্ট ইউজ করি যেখানে করা লাগে।

বলে রাখা ভালো, এটা শুধু একটা জেনারেল আউটলাইন। প্রডাক্টের উপর নির্ভর করে অনেক কিছু যোগ হতে পারে, অথবা বাদ দেওয়া যেতে পারে। যেমন, যদি আমি কোনো টেকনিক্যাল প্রডাক্ট নিয়ে লিখি, তাহলে সেটা কিভাবে ইউজ করতে হয়, সেট আপ করতে হয় এসব অবশ্যই লিখবো। আবার যদি কোনো হেলথ রিলেটেড প্রডাক্ট হয়, তাহলে সেটার কোনো সাইড এফেক্ট থাকলে সেগুলা লেখার ট্রাই করবো।

  • মাল্টিমিডিয়াঃ আমি আর্টিকেলে যেখানে যেখানে প্রয়োজন মনে হয় ইমেজ ব্যবহার করার ট্রাই করি। ইমেজ একটা ভালো আর্টিকেলের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। ইমেজ না থাকলে আপনার আর্টিকেলটা একদম বোরিং হবে এবং ভিজিটররা পড়ে মজা পাবে ন। তাই বেশি বেশি ইমেজ ব্যবহারের চেষ্টা করবেন। তবে, অবশ্যই খেয়াল রাখবেন ইমেজটা যেন প্রাসংগিক হয় এবং আর্টিকেলটার সাথে যায়। যদি মনে করেন ইমেজটা থেকে আপনার ভিজিটরকে এক্সট্রা ভ্যালু দিবে, তবেই সেটা আর্টিকেলে এড করবেন। এছাড়াও, মনে রাখবেন, আমাজন থেকে আপনি ডাইরেক্ট ইমেজ সেভ করে সেটা সাইটে ব্যবহার করতে পারবেন না, এতে আমাজনের গাইডলাইন ভাংবেন আপনি। আমাজন থেকে প্রডাক্ট এর ছবি নিতে হলে আপনাকে এফিলিয়েট টুলবার (Amazon Associate SiteStripe) থেকে ইমেজ এর কোড নিয়ে সেটা সাইটে বসিয়ে ইমেজ ইউজ করতে হবে।

এছাড়াও, যেখানে যেখানে আপনি প্রাসংগিক মনে করেন, ভিডিও এড করতে পারবেন। ভিডিও আপনার আর্টিকেলকে আরো অনেকগুনে আকর্ষনীয় করবে ও কোয়ালিটি বাড়িয়ে দিবে। তবে অবশ্যই ভিডিও টাকে আপনার টপিকের সাথে প্রাসংগিক হতে হবে। ভিডিও এম্বেড করা একদম লিগ্যাল, এতে আপনি কোনো ধরনের সমস্যায় পড়বেননা।ভিডিও খুব সহজে ভিজিটরকে প্রডাক্টটা সম্পর্কে ভালো ধারণা দেয়। এছাড়াও, ভিডিও সাইটের এভারেজ সেশন ডিউরেশন বাড়ায়, যেটা র‍্যাঙ্কিং এর জন্য অনেক হেল্পফুল।

তো, এই হলো আমার প্রডাক্ট রিভিউ আর্টিকেল লেখার গাইডলাইন। আমি এভাবেই প্রডাক্ট রিভিউ আর্টিকেল লিখে সাফল্য পেয়েছি এবং Writers Motion ও এভাবে আর্টিকেল লিখে থাকে। আশা করি আর্টিকেলটা আপনাদের কাজে আসবে।

Writers Motion থেকে প্রডাক্ট রিভিউ বা অন্য যেকোনো ধরনের আর্টিকেল অর্ডার করতে এখানে ক্লিক করুন।