Plagiarism checker tools

কিভাবে দেখবো আমার আর্টিকেল প্ল্যাগারিজম ফ্রি? (৫ টি ফ্রি টুলস্‌)

 আপনার আর্টিকেল যত ভালোভাবেই লেখা হোক না কেন, সেটায় যদি প্ল্যাগারিজম থাকে, তাহলে আর্টিকেলটার কোনো ভ্যালুই থাকবেনা। গুগুল প্ল্যাগারাইজড কন্টেন্ট র‍্যাঙ্ক করা দূরের কথা, পুরা সাইটকেই ব্ল্যাক লিস্টে ফেলে দিতে পারে। তাই, আপনি নিজে আর্টিকেল লিখেন বা কাউকে দিয়ে লেখান, আর্টিকেলটা প্ল্যাগারাইজড ফ্রি কিনা তা অবশ্যই দেখে নেওয়া উচিত।

প্ল্যাগারিজম বলতে আসলে বোঝায়, আপনার আর্টিকেলটা ইউনিক কিনা। যদি কোথাও থেকে আর্টিকেলের অংশবিশেষও কপি করা হয়ে থাকে, তাহলে সেটা প্ল্যাগারাইজড কন্টেন্ট।

 আর্টিকেল প্ল্যাগারাইজড কিনা সেটা দেখার জন্য অনেক টুলস্‌ আছে। সবচেয়ে ভালো অ্যান্ড জনপ্রিয় টুলটি হলো CopyScape. তবে এটি প্রিমিয়াম টুল, মানে ব্যবহার করতে হলে আপনাকে টাকা (ডলার) দিয়ে ক্রেডিট কিনতে হবে। যেহেতু এই আর্টিকেলে শুধু ফ্রি টুলস্‌ নিয়ে কথা বলছি, তাই এখানে CopyScape নিয়ে কিছু বললাম না।

এখানে ৫ টা সেরা ফ্রি প্ল্যাগারিজম চেকার টুল নিয়ে কথা বলা হচ্ছেঃ

১। Dupli Checker:

এটা আমার প্রিয় ফ্রি টুলগুলোর একটি। যদিও এর ইন্টারফেস আহামরি কিছু না, তবে এর প্ল্যাগারিজম ডিটেকশন এলগরিদম আসলেই ভালো।

সুবিধাঃ

  • এটা সম্পূর্ণ ফ্রি। ব্যবহার করতে আপনাকে কোনো টাকা দিতে হবেনা।
  • সহজে ব্যবহার করতে পারবেন। ইন্টারফেস বিগিনারদের জন্য ভালো
  • আপনি আর্টিকেলটা ডাইরেক্ট কপি-পেস্ট করে চেক করতে পারেন অথবা ডক ফাইল আপলোড করেও চেক করতে পারেন।
  • রেজিস্টারড ইউজাররা প্রতিদিন ৫০বার চেক করতে পারবে।

অসুবিধাঃ

  • আপনি যদি রেজিস্টার না করে থাকেন, তাহলে প্রতিদিন শুধু একবার চেক করতে পারবেন। এটা আসলে তেমন কোনো অসুবিধা না, রেজিস্টার করতে আপনার ৫ মিনিটের বেশি লাগবেনা আর একদম ফ্রি।

২। PaperRater:

এটা একটা মাল্টি পারপাস প্ল্যাগারিজম ডিটেকশন টুল যা বর্তমানে ১৪০টির ও বেশি দেশে ব্যবহার করা হচ্ছে।

সুবিধাঃ

  • একের ভিতর আপনি ৩ টি সার্ভিস পাচ্ছেনঃ প্রুফ রিডিং এবং গ্রামার চেক, ভোকাভোলারি বিল্ডার আর প্ল্যাগারিজম চেকার।
  • একদল এক্সপার্টদের দিয়ে বানানো এটার ইন্টারফেস বিগিনার ফ্রেন্ডলি
  • খুব তাড়াতাড়ি নিখুত রেজাল্ট দেয়।

অসুবিধাঃ

  • রিপোর্ট সেভ করে রাখার কোনো অপশন নাই।

৩। Plagiarisma

এই টুলটি প্রধানত বানানো হয়েছে রাইটার, টিচার এবং স্টুডেন্টদের জন্য। ব্যবহার করা খুবই সহজ আর এটা মাল্টি পারপাস।

সুবিধাঃ

  • ১৯০ টারও বেশি ভাষা সাপোর্ট করে
  • ৩ ভাবে কন্টেন্ট চেক করা যায়ঃ আপনি ডাইরেক্ট কপি পেস্ট করে চেক করতে পারেন, ফাইল আপলোড করে চেক করতে পারেন অথবা লিঙ্ক কপি পেস্ট করেও চেক করা যাবে।
  • এই টুলটার ফায়ার ফক্স আর ক্রোম এক্সটেনশন আছে। এই এক্সটেনশন গুলো ব্যবহার করে আপনি খুব সহজেই আর্টিকেল খুব কম সময়ে চেক করিয়ে নিতে পারবেন।

অসুবিধাঃ

  • ফ্রি ভার্সন দিয়ে আপনি আনলিমিটেড বার চেক করতে পারবেন না। ফ্রি ভার্শনটি সীমিত সংখ্যক বার চেক করার সুযোগ দেয়।

৪। Copyleaks:

এটা একটা ক্লাউড বেজড প্রোগ্রাম যেটা দিয়ে খুব সহজেই প্ল্যাগারিজম চেক করা যায়।

সুবিধাঃ

  • বিভিন্ন ফাইল ফরম্যাট এবং ল্যাঙ্গুয়েজের কন্টেন্ট চেক করতে পারে।
  • স্টুডেন্টদের জন্য এবং আন্ট্রাপ্রনার দের জন্য বিশেষভাবে বানানো।
  • এখানে আপনি অনেক ধরনের টুল পাবেন যেগুলা দিয়ে কন্টেন্ট এর কোয়ালিটি বোঝা যায়। এছাড়াও, Copyleaks এর মোবাইল এপ আছ যা দিয়ে মোবাইলেই প্ল্যাগারিজম চেক করা যাবে। এখানেই শেষ না, এটার মাইক্রোসফট এড-অন আছে যা দিয়ে খুব সহজেই ডক ফাইল চেক করা যায়।

অসুবিধাঃ

  • কেবল মাত্র রেজিস্টারড ইউজাররাই এই টুলটা ব্যবহার করতে পারবে।
  • ফ্রি ভার্শনে একটা রেস্ত্রিকশন আছে। কেবল মাত্র প্রথম ১০টা পেজের চেকই ফ্রিতে করা যাবে।

৫। Plagiarism Checker:

এই টুলটা খুবই ইউজার ফ্রেন্ডলি আর একদমই ফ্রি।

সুবিধাঃ

  • টুলটা কিভাবে ব্যবহার করতে হবে তার স্টেপ বাই স্টেপ গাইডলাইন অনেক ডিটেইলস এ লিখে দেওয়া আছে। আপনার ব্যবহার করতে কোনো অসুবিধা হবে না।
  • যদি কেউ আপনার কন্টেন্ট কপি করে অনলাইনে ইউজ করে থাকে কোথাও, তাহলে এই টুলটি আপনাকে ইমেইল নোটিফিকেশন দিয়ে জানাবে।
  • কোনো ধরনের ডাউনলোডের দরকার নাই।

অসুবিধাঃ

  • কেবল মাত্র দুইটা ব্রাউজার সাপোর্ট করে।

তো, এই আমার মতে সেরা ৫টি ফ্রি প্ল্যাগারিজম চেকার টুল। আপনার যেটা ভালোলাগে আপনি সেটাই ব্যবহার করতে পারেন।

আপনি যদি Writers Motion থেকে আর্টিকেল কিনে থাকেন, তাহলে আপনাকে প্ল্যাগারিজম নিয়ে কোনো টেনশন করতে হবে না। আমরা প্রত্যেকটা কন্টেন্ট ডেলিভার করার আগে Premium CopyScape দিয়ে চেক করে দিয়ে থাকি। Writers Motion থেকে আর্টিকেল অর্ডার করতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন